করোনার নতুন ভ্যারিয়েন্ট ‘নিওকোভ’, প্রতি তিনজনে মৃত্যু হতে পারে একজনের

করোনার একাধিক ভ্যারিয়েন্টের ধকল কাটিয়ে উঠতে পারেনি গোটা বিশ্ব। ডেল্টা, ওমিক্রন এখন অতীত! সন্ধান মিলেছে কোভিডের নতুন ভ্যারিয়েন্টের। এমনই দাবি করছেন চিনের এক দল বিশেষজ্ঞ। যে ভ্যারিয়েন্টের নাম ‘নিওকোভ’। উহানের এই চিকিৎসা-বিজ্ঞানীদের দাবি, শ্বাসযন্ত্রকে প্রভাবিত করতে পারে সদ্য আবিষ্কার হওয়া এই মার্স-করোনাভাইরাস। শুধু কি তাই? চিনা বিশেষজ্ঞদের দাবি, এই রূপের মারণক্ষমতাও তুলনামূলক ভাবে বেশি। প্রতি তিন সংক্রমিতের এক জনের মৃত্যু হতে পারে ‘নিওকোভ’- এ।

শুক্রবার (২৮ জানুয়ারি) এ তথ্য জানিয়েছে ভারতের গণমাধ্যম আনন্দবাজার পত্রিকা। এছাড়া ভারতীয় সংবাদমাধ্যম দ্যা টাইমস অব ইন্ডিয়া, হিন্দুস্তান টাইমসে প্রকাশিত হয়েছে ‘নিওকোভ’ ভ্যারিয়েন্ট সম্পর্কিত চাঞ্চল্যকর প্রতিবেদন।

উহানের একটি ওয়েবসাইটে প্রকাশিত হয়েছে এই সংক্রান্ত গবেষণাপত্র। সেখানে বিশেষজ্ঞরা দাবি করছেন, বাজারে চলতি কোনো করোনার টিকাই নিওকোভের ক্ষেত্রে কার্যকরী হবে না। এই ভাইরাস নিয়ে আরও বিস্তারিত গবেষণা প্রয়োজন। নিওকোভের মতো ধরনের সন্ধান পাওয়া গিয়েছিল ২০১৩ এবং ২০১৫ সালে। প্রথম এই ধরনের সন্ধান মেলে দক্ষিণ আফ্রিকায়। মূলত বাদুরের শরীরে পাওয়া যায় নিওকোভ। এ নিয়ে বৃহস্পতিবারই রাশিয়ার ‘ভেক্টর রাশিয়ান স্টেট রিসার্চ সেন্টার অব ভাইরোলজি অ্যান্ড বায়ো-টেকনোলজি’ একটি বিবৃতি দেয়।

সেখানে বলা হয়, চিনা বিশেষজ্ঞরা যে নয়া ধরন নিয়ে সাবধান করছেন, তা নিয়ে এখনই চিন্তার কিছু নেই। মানব শরীর এই ধরনটিতে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা খুবই ক্ষীণ। চলমান সময়ে ওমিক্রন নিয়ে সারা বিশ্ব আতঙ্কে আছে। তীব্র সংক্রমণ ক্ষমতার জন্য এই ধরন নিয়ে আলাদা ভাবে চিন্তিত বিশেষজ্ঞরা। তবে আশার কথা, ওমিক্রনে আক্রান্তদের মৃত্যুঝুঁকি অনেক কম।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*