গাজীপুরে সাফারি পার্কে ৯ জেব্রার মৃ’ত্যু, ঘাস নিয়ে র’হস্য!

গাজীপুরের শ্রীপুরে অবস্থিত বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব সাফারি পার্ক দেশি-বিদেশি নানা প্রা’ণী ও পাখির বৈচিত্র্যময় সম্ভা’রে মুগ্ধ আগত দর্শনার্থীরা।

বিভিন্ন সময় এখানে প্রা’ণীর মৃ’ত্যু ঘটলেও সবচেয়ে ম’র্মা’ন্তিক ঘটনা ঘটে গেছে গত বিশ দিনে। এই সময়ে অন্তত ৯টি বড় আকারের জেব্রা মা’রা গেছে।

এ নিয়ে সাফারি পার্কে চাপা আতঙ্ক বিরাজ করছে। কি কারণে এই কদিনে এতগুলো জেব্রা মা’রা গেল তা নিয়ে চলছে পরীক্ষা-নিরীক্ষা’ জানিয়েছেন পার্কের ভা’রপ্রাপ্ত কর্মক’র্তা (এসিএফ) মো. তবিবুর রহমান।

এটা কোনো ভাই’রাস নাকি ব্যাকটেরিয়ার আক্রমণ তা নিয়ে পার্কে দফায় দফায় বিশেষজ্ঞদের বৈঠক চলছে। এখনো কোনো ফলাফল পাওয়া যায়নি বলেও পার্ক সূত্র জানিয়েছে।

পার্কের আফ্রিকান সাফারি জোনে অন্য সব প্রা’ণীর সঙ্গে জেব্রার পাল বাস করে। জেব্রাগুলোর এমন অস্বাভাবিক মৃ’ত্যুর খবর নিশ্চিত করেন পার্কের প্রকল্প পরিচালক মো. জাহিদুল কবির।

পার্কের একটি সূত্র জানায়, বছরের শুরুতেই একটি জেব্রা মা’রা যায়। পরে পর্যায়ক্রমে ২ জানুয়ারি থেকে হঠাৎ একেই একের পর এক জেব্রা মা’রা যাচ্ছে। এ নিয়ে কর্মক’র্তা-কর্মচারীদের মাঝে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে।

গতকাল সোমবার পর্যন্ত ৯টি জেব্রা মা’রা গেছে। আরও বেশ কটি জেব্রা অ’সুস্থ মনে হচ্ছে।

সূত্র আরও জানায়, পার্কটিতে বিভিন্ন সময় বেশ কিছু শাবকের জন্ম হয়েছে। করো’নাকালেও গত বছর বেশ কটি শাবকের জন্ম হলো। এর ফলে পার্কে মোট জেব্রার সংখ্যা হয়েছিল ৩১টি। ৯টি জেব্রার মৃ’ত্যুর পর এখন রয়েছে ২২টি।

মৃ’ত প্রা’ণীর ম’রদেহের নমুনা রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউট (আইইডিসিআর) এবং বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের পরীক্ষা কেন্দ্রে পাঠানো হয়েছে। বিভিন্ন পরীক্ষা-নিরীক্ষার ফলাফল বিচ্ছিন্নভাবে এসেছে।

সূত্র জানায়, অন্যান্য প্রা’ণীর মৃ’ত্যু হলেও একই ধরনের পরীক্ষা-নিরীক্ষা পদ্ধতি অবলম্বন করা হয়। তবে জেব্রার এই অস্বাভাবিক মৃ’ত্যুর পর বিশেষ গুরুত্ব দিয়ে বিভিন্ন আঙ্গিকে নমুনা পরীক্ষা করে যাচ্ছেন সংশ্লিষ্টরা।

সম্প্রতি জেব্রার সংখ্যা দিন দিন বাড়ার কারণে এখান থেকে জাতীয় চিড়িয়াখানায় কিছু জেব্রা পাঠানোর পরিকল্পনা ছিল। কিন্তু হঠাৎ এমন মৃ’ত্যু পার্ক সংশ্লিষ্ট সবাইকে ভাবিয়ে তুলছে। চিন্তায় পড়ে গেছেন বিশেষজ্ঞরা।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে এক কর্মচারী জানান, সাফারি পার্কে জেব্রাকে ঘাস সরবরাহ করে মাহবুব এন্টারপ্রাইজ নামের একটি প্রতিষ্ঠান। চারণভূমির ঘাস খাওয়ানোর পাশাপাশি সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে দেশের বিভিন্ন জায়গা থেকে ঘাস এনে জেব্রাসহ অন্য প্রা’ণীদের খাওয়ানো হচ্ছে।

এসব ঘাসেও বিষক্রিয়া হতে পারে বলে অনেকেই স’ন্দেহ করছেন।

এ ব্যাপারে সাফারি পার্কের ভা’রপ্রাপ্ত কর্মক’র্তা (এসিএফ) তবিবুর রহমান বলেন, সোমবার ঘাস সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠানের মালিক সিরাজুল ইস’লামকে নিয়ে মানিকগঞ্জে গিয়েছি। চেষ্টা করছি বের করতে আসলে কেন জেব্রার এমন অস্বাভাবিক মৃ’ত্যুর ঘটনা ঘটছে।

ঘাসে কোনো বিষক্রিয়া হচ্ছে কিনা তাও ভাবছি। ঘাস উৎপাদন করা কৃষকদের সঙ্গে কথা বলেছি। সেখান থেকে বিভিন্ন ধরনের নমুনা সংগ্রহ করা হচ্ছে। সাফারি পার্কের চারণভূমির ঘাস ও মাটি পরীক্ষার জন্য পাঠানো হয়েছে পরীক্ষাগারে। কিছু পরীক্ষার মাধ্যমে নয়টি জেব্রার পাকস্থলীর বিভিন্ন নমুনা পরীক্ষা করে নাইট্রো ফসফরাসের উপস্থিতি পাওয়া গেছে। তাছাড়াও বিভিন্ন ভাই’রাস-ব্যাকটেরিয়ার উপস্থিতি মিলেছে।

পার্কের প্রকল্প পরিচালক মো. জাহিদুল কবির বলেন, এক সঙ্গে এতগুলো জেব্রার এমন অস্বাভাবিক মৃ’ত্যুর কারণ অনুসন্ধান চলছে। প্রত্যেকটির ম’রদেহ ময়নাত’দন্ত করা হয়েছে।

তিনি বলেন, সাফারি পার্কের নিরাপত্তায় কোনো ঘাটতি নেই। বাইরে থেকে কেউ এসে বিষ প্রয়োগ করবে, এমন ঘটনা ঘটার কথা না। তবু আম’রা এগুলো মা’থায় রেখেই মঙ্গলবার বৈঠকে বসছি। সবকিছু রিপোর্টের উপর নির্ভর করছে। বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকেরা মতামত দেবেন। আম’রা বৈঠকের পর সবকিছু জানতে পারবো ও জানাতে পারব।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*