দাঁত ও নখের সাদা দাগ থেকে সাবধান! না হলে অপেক্ষা করছে ভয়ংকর বিপদ!

আশা করি সবাই ভাল আছেন। আজ আপনাদের মাঝে অরেকটি আর্টিকেল নিয়ে হাজির হলাম। আজ আপনাদের জানাবো দাঁত ও নখের সাদা দাগ সম্পর্কে কিছু তথ্য। দাঁত ও নখের সাদা দাগ থেকে সাবধান! না হলে মানব দেহের ভেতরে রোগের প্রতিফলন ঘটে শরীরের বাহ্যিক নানা লক্ষণের মাধ্যমে। অনেক সময় দাঁত ও নখের উপর তৈরি হওয়া সাদা ছোপ ছোপ দাগ রোগের কারণ হতে পারে।

সম্প্রতি মান্থলি হেলথ জার্নাল অফ টরোন্টোতে এই বিষয়ে বিশেষ প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। যে কারণে দাঁতের উপরে সাদা দাগ- যদিও বাচ্চাদের দাঁতের মধ্যে এই ধরনের দাগ সাদা দেখা যায়।নখের সাদা দাগ

বয়স বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে এই দাগ মিলিয়েও যায়। কিন্তু প্রাপ্তবয়স্ক মানুষদের দাঁতে এই সাদা দাগ সাধারণ ভাবে এনামেল ঘটিত সমস্যাকে চিহ্নিত করে। ডাক্তারি পরিভাষায় এই রোগের ন‌াম ‘এনামেল হাইপোপ্ল্যাসিয়া’।

এটা দাঁতের ক্ষয়ের প্রথম লক্ষণ। এই রোগের কোন ঘরোয়া প্রতিকার খুঁজে পাওয়া মুশকিল। ক্যালসিয়াম পাউডার দিয়ে নিয়মিত দাঁত মাজলে কিছুটা প্রতিকার সম্ভব। ফলে দাঁতের ডাক্তারের দ্বারস্থ হওয়াই বুদ্ধিমানের কাজ। এছাড়া অনেক সময়ে ব্যাকটেরিয়া ঘটিত রোগের কারণেও দাঁতে এরকম সাদা দাগ দেখা দিতে পারে।

তাকে বলা হয় প্লাক। যে কারণে নখের উপর সাদা দাগ- সাধারণত কোন আঘাতজনিত কারণে অধিকাংশ সময়েই নখের উপর এই ধরনের দাগ তৈরি হয়। যার হাতে আঘাত লাগছে, তিনি অনেক সময় টেরও পান না যে আঘাত লেগেছে। কিন্তু পরে নখের উপর দেখা দেয় ওই সাদা দাগ। এছাড়া নখের উপর সাদা দাগের সৃষ্টি হতে পারে শরীরে জিংকের অভাবের কারণে।

জিংকের অভাবের ফলে তৈরি হওয়া এই ধরনের দাগকে বলা হয় ‘লিউকোনিচিয়া’। জিংকের অভাবের কারণে আপনার শরীরে কোন ক্ষত শুকোতে যেমন সময় লাগে, তেমনই মুখের ভিতর কিংবা অন্য কোন স্পর্শকাতর জায়গায় দেখা দিতে পারে ঘা বা আলসার।

এছাড়া জিংকের অভাবের ফলে দেখা দেয় নারী পুরুষের যৌন সমস্যাও। জিংকের অভাব মেটাতে ডিম, মাছ, দুধ, বিনস, বাদাম এবং মুসুর ডালের মতো খাবার অত্যন্ত উপকারী। কাজেই নখে যদি এই রকম সাদা দাগ দীর্ঘদিন ধরে থেকে যায়, তাহলে অবিলম্বে এই জাতীয় খাবার খাওয়া শুরু করাই বুদ্ধিমানের কাজ।

সুস্থ থাকুন, নিজেকে এবং পরিবারকে ভালোবাসুন। আমাদের লেখা আপনার কেমন লাগছে ও আপনার যদি কোনো প্রশ্ন থাকে তবে নিচে কমেন্ট করে জানান। আপনার বন্ধুদের কাছে পোস্টটি পৌঁছে দিতে দয়া করে শেয়ার করুন। পুরো পোস্টটি পড়ার জন্য আপনাকে অনেক ধন্যবাদ।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*