‘বিয়েবাড়ির ফটোগ্রাফার ছবিটি তোলেননি’, ভাইরাল সরকারি কর্মকর্তার পোস্ট

একদিকে যখন গরিবকে খালি পেটে রাতে ঘুমোতে যেতে হয়, অন্যদিকে এলাহিকাণ্ডের বিয়েবাড়িতে স্তূপ স্তূপ খাবার স্রেফ ডাস্টবিনে ফেলে দেওয়া হচ্ছে! সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে এমনই এক অপচয়ের ছবি তুলে ধরেছেন ভারতের এক সরকারি (আইএএস) কর্মকর্তা। সে ছবি এখন ভাইরাল।

অবনীশ শরণ নামের ওই আইএএস কর্মকর্তা তাঁর ভেরিফায়েড টুইটার অ্যাকাউন্টে যে ছবি পোস্ট করেছেন, তাতে দেখা যাচ্ছে—একটি চাটাই বা মাদুরে একজন পরিচ্ছন্নতাকর্মী বসে কাজ করছেন। তাঁর সামনে পড়ে রয়েছে খাবারের স্তূপ! চারপাশে সারি করে রাখা হয়েছে এঁটো প্লেট। সেসব পরিষ্কার করতে ব্যস্ত ওই ব্যক্তি। তখনই ছবিটি তোলা হয়েছে। অবনীশের ছবিটি অন্তর্জালবাসীর মাথা ঘুরিয়ে দিয়েছে।

বিশেষজ্ঞেরা বলছেন, আগামী দিনে গোটা বিশ্বেই খাদ্যসংকট প্রবল হবে। আফ্রিকার কয়েকটি দেশে এখনই সে অবস্থা দৃশ্যমান। বিশ্বের অসংখ্য মানুষের কাছে খাবার কেনার মতো অর্থই নেই। কোভিড পরিস্থিতিতে এত জাঁকজমকের অর্থ কী? যেখানে অসংখ্য মানুষ তাঁদের রুটি-রুজি হারিয়ে অসহায় অবস্থায় দিন কাটাচ্ছেন, সেখানে এমন আয়োজনকে কি সমর্থন করা যায়? এমন অসংখ্য প্রশ্ন তুলেছেন টুইটারবাসী।

অবনীশ তাঁর ছবির মাধ্যমে যেন সাধারণ মানুষকে বার্তা দেওয়ার চেষ্টা করেছেন। ছবির ক্যাপশনে তিনি লিখেছেন, ‘আপনার ওয়েডিং ফটোগ্রাফার যে ছবিটি তুলতে পারেননি। খাদ্যের অপচয় বন্ধ করুন।’

এখন পর্যন্ত ১৩ হাজারের বেশি মানুষ অবনীশের ওই টুইটে লাইক করেছেন। মন্তব্যও করেছেন অসংখ্য ফলোয়ার। তাঁদের একাংশ মনে করছেন—যারা অপচয়ে অভ্যস্ত, তাদের কোনোদিনই হুঁশ হবে না। তাই, অবিলম্বে এ বিষয়ে কড়া আইনি পদক্ষেপ প্রয়োজন। অনেকে বলছেন, অতিরিক্ত খাবার এভাবে অপচয় না করে তা অভাবী, দরিদ্রদের মধ্যে বিতরণ করে দেওয়া যেতে পারে।

তবে, টুইটারবাসীর মতামত যাই হোক, অবনীশের পোস্ট করা ছবি সবাইকেই হতবাক করেছে, খাদ্যের অপচয় নিয়ে নতুন করে ভাবতে বাধ্য করেছে। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে মাঝে মধ্যেই উঠে আসে এমন ভাবনার খোরাক জোগানো পোস্ট বা ঘটনা। এ ভাবনার স্থায়িত্ব কতদিন হয়, সেটাই এখন দেখার।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*