রাজবাড়ীতে দুটি বৃক্ষের বিয়েতে হাজির এলাকাবাসী

‘হিন্দু শাস্ত্রে আছে- বট-পাকুড় একসাথে থাকলে তাদের বিয়ে দিতে হয়। সে জন্যই রাজবাড়ীর পাংশা উপজেলার বাবুপাড়া ইউনিয়নে ডাকুরিয়া মহাশ্মশানে একসাথে বেড়ে ওঠা বট-পাকুড় গাছের বিয়ের আয়োজন করেন শ্মশান কমিটি। সোমবার এ বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন হয়। বিয়ের আয়োজনকে ঘিরে শ্মশান প্রাঙ্গণ সজ্জিত হয় নানারকম লাইটিংয়ে। দুপুর থেকেই বিয়ে দেখতে বিভিন্ন এলাকার উৎসুক ভক্তদের আগমণ ঘটে।

বট-পাকুর গাছের চারপাশ বাঁধানো হয়েছে ইট ও টাইলস দিয়ে। বিয়ে ঘিরে বর-কনের পাশে ছাদনাতলা সাজানো হয়। উপরে শামিয়ানা ও চারপাশে ছিল কলাগাছ। বিয়ের উৎসবে আয়োজনের যেন কোনো ঘাটতি নেই। মূলত বিয়ের জন্য যা যা লাগে তার সব আয়োজনই ছিল এখানে। কিন্তু বর-কনের দেখা নেই। একটু পরেই জানা গেল এই আয়োজন দুটি গাছের বিয়ে উপলক্ষে। তার একটি বট অন্যটি পাকুড় গাছ। বট হলো বর আর পাকুড় গাছ হলো কনে।

বিয়ের হলুদ কোটা, পুকুর থেকে জল আনা, বর ও কনের বাবাকে দিয়ে করা হয় বিদ্ধি অনুষ্ঠান। নারীরা পুকুরে গিয়ে গঙ্গাপূজা সেরে আসেন। জল দিয়ে ভরে আনেন ঘট। ছাদনাতলায় মঙ্গলঘট বসিয়ে শুরু হয় বিয়ের নিবেদন। বিকাল ৪টায় বরের বাড়ি থেকে নারী-পুরুষ আসেন বরযাত্রী হয়ে। গেটে মিষ্টিমুখ করিয়ে অভ্যর্থনা জানানো হয় তাদেরকে। বাদ্য-বাজনার তালে নেচে ওঠেন সব বয়সী নারী-পুরুষ। বর-কনের চারপাশ ঘিরে দাঁড়িয়ে থাকেন অতিথিরা।

সন্ধ্যাবেলা শুভলগ্নে শুরু হয় বিয়ের মূল আনুষ্ঠানিকতা। গোধূলিলগ্নে মন্ত্র পড়ে বিয়ে সম্পন্ন করেন পুরোহিত। মহা ধুমধামে আয়োজিত এই বিয়ের বটগাছের বাবা হয়ে বিয়ের কাজ সম্পন্ন করেন উপজেলার পাট্টা ইউনিয়নের বাসিন্দা ও ইউপি সদস্য অতুল চন্দ্র সরকার এবং ডাকুরিয়া মহাশ্মশানের সেবাইত বন্ধন মিত্র পাকুড় গাছের পিতা ছিলেন । তারা দুজনই পিতার দায়িত্ব পালন করে হয়েছেন বেশ খুশি। তারা জানান এই বট-পাকুড় গাছের বিয়ের মধ্য দিয়ে তাদের মধ্যেও আত্মীয়তার সম্পর্ক অটুট থাকবে।

শ্মশান কমিটির সভাপতি বাবুল চৌধুরী জানান, ডাকুরিয়া শ্মশানটি ছিল উপেক্ষিত। আমি এখানকার দায়িত্ব নিয়ে আমার স্বর্গীয় পিতা-মাতার স্মৃতিরক্ষার্থে এখানে নাটমন্দির স্থাপন করি। প্রতিবছর বাৎসরিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করি। শ্মশানে বেড়ে ওঠা বট-পাকুড় গাছ দুটিকে বিয়ে দেয়ার জন্য অনেকেই বলেন তাই আজ এই বিয়ের অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছি। এমন আয়োজন করতে পেরে আমি নিজেও আনন্দিত।

বিয়ের এই অনুষ্ঠানে নিমন্ত্রণ খেতে এসেছিলেন প্রায় হাজারখানেক অতিথি। আমন্ত্রিতদের খাওয়ানো হয় পোলাও, সবজি, ডাল, ফুলকপির তরকারী, চাটনী ও মিষ্টি।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*